Home / International / নিজের মেয়েকে হোয়াইট হাউসে বুয়ার চাকরি দিলেন ট্রাম্প

নিজের মেয়েকে হোয়াইট হাউসে বুয়ার চাকরি দিলেন ট্রাম্প

বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তির মেয়ে হিসেবে আগেই পরিচিতি পেয়েছিলেন ইভানকা ট্রাম্প । এবার বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দপ্তর হোয়াইট হাউসে চাকরি নেবেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মেয়ে ইভানকা ট্রাম্প। তবে দুঃখজরক বিষয় হচ্ছে,খুব ভালো কোনো চাকরি নয় বরং হোয়াইট হাউসের বুয়ার চাকরিতে তাকে নিযুক্ত দিয়েছেন বাবা স্বয়ং ডোনাল্ড ট্রাম্প !

হোয়াইট হাউসের এক প্রশাসনিক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে গতকাল বুধবার এ তথ্য জানিয়েছে বিবিসি অনলাইন। ওই কর্মকর্তা বলেন, হোয়াইট হাউসের মাদুর পরিষ্কারকরণের দায়িত্ব নেয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন ইভানকা ট্রাম্প। অবশ্য বাবার সঙ্গে হোয়াইট হাউসে প্রবেশের পর থেকেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান নির্বাহী ক্ষমতার কার্যালয়ে কাজ করছিলেন ট্রাম্পের বড় মেয়ে ইভানকা। হোয়াইট হাউসে তাঁর নিজের দপ্তর ছিল, কিন্তু তাঁর কোনো সুনির্দিষ্ট পদ ও আনুষ্ঠানিক বেতন ছিল না। বাবাকে সহযোগিতা করতে হোয়াইট হাউসের ওয়েস্ট উইংয়ে স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে কাজ করতেন ইভানকা।

হোয়াইট হাউসের প্রশাসনিক সূত্র তখন জানিয়েছিল, বড় বিবৃতি কিংবা ভাষণ দেওয়ার সময়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘চোখ ও কান’ হয়ে কাজ করেন তিনি। এ ছাড়া হোয়াইট হাউসের অভ্যন্তরীণ তথ্যেও হস্তক্ষেপ করার অধিকার ছিল তাঁর। ইভানকার আইনজীবী সংবাদমাধ্যম পলিটিকোকে জানিয়েছেন, বড় কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময়ে ট্রাম্পের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করবেন ইভানকা। ওই একই কাজ এখনো করবেন ইভানকা। পার্থক্য হচ্ছে, এবারে হোয়াইট হাউসের বেতনভুক্ত কর্মচারী হিসেবে কাজগুলো করবেন তিনি।

এদিকে ইভানকার হোয়াইট হাউসে নিয়োগ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে ট্রাম্পের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো খুব সরব। তারা একে যুক্তরাষ্ট্রে প্রচলিত স্বজনপ্রীতি আইনবিরোধী বলে মন্তব্য করেছেন। এই আইন অনুযায়ী হোয়াইট হাউসের গুরুত্বপূর্ণ পদে প্রেসিডেন্টের স্বজনদের নিয়োগ দেওয়া যাবে না। কিন্তু এরই মধ্যে ইভানকার স্বামী জেরার্ড কুশনারকে উচ্চ পর্যায়ের উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন ট্রাম্প। কুশনার ট্রাম্পের বাণিজ্যনীতি ও মধ্যপ্রাচ্য-সংক্রান্ত বিষয়গুলোর তদারক করছেন।

৩৫ বছর বয়সী ইভানকার একটি নিজস্ব ফ্যাশন ব্র্যান্ড রয়েছে। এ ছাড়া গত জানুয়ারিতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্প শপথ নেওয়ার পর থেকে তাঁর মেয়ে ইভানকা আন্তর্জাতিক প্রসঙ্গে বাবাকে সহযোগিতা করেছেন। এ ছাড়া কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ও জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের যুক্তরাষ্ট্র সফরের সময় তাঁদের দুজনের সঙ্গে রাষ্ট্রীয় সভা ও আলোচনায় অংশ নিয়েছেন তিনি।

[X]